পটুয়াখালীতে ছেলে ও মা, খালাকে কুপিয়ে জখম,থানায় অভিযোগ

স্টাফ রিপার্টারঃ এইচ এম মোশারেফ হোসেন সুজনঃপটুয়াখালীতে পূর্বের বিভিন্ন তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে পিডিএস মাঠ সংলগ টাউন হলের মধ্যে খেলতে গেলে মোঃ সুমন সিকদার (১৬)কে মারধর করে এ বিষয়ে জানতে গেলে মা মোসাঃ লায়লা বেগম(৩০) ও খালা মোসাঃ মোর্শেদা বেগমকে পিটিয় শরীরর বিভিন্ন স্থানে নীলা ফুলা জখম সহ মোর্শেদা বেগমের চোখের উপরিভাগে কোপ দিয়ে মারাত্মক রক্তাক্ত জখম করে।

পিডিএস মাঠ সংলগ সরকারি টাউন হলে বসবাসকারী সুমন(২৫), কবির হোসন(৪০), রেহেনা বেগম (৩৭), কলি আক্তার (২০) বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আহত লায়লা বেগম ও মোর্শেদা বেগমকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে পটুয়াখালী ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক লায়লা বেগমকে চিকিৎসা প্রদান করেন। মোর্শেদা বেগমকে ভর্তি করেন সার্জারি বিভাগ বি- ৪ নাম্বার বেডে আছেন।

ঘটনাটি ঘটে ৯ অক্টোবর সন্ধ্যা ৬টার সময় পটুয়াখালী পৌরসভাধীন পিডিএস মাঠ সংলগ বেপারী বাড়ী সড়ক স্থান টাউন হলের মধ্যে। এঘটনায় আহত মোসাঃ লায়লা বেগম বাদী হয়ে উপরোক্ত হামলাকারীদের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দাখিল করেন, যার সিরিয়াল নং-২৩২৮/২১।
লিখিত অভিযোগের সংক্ষিপ্ত বিবরণীতে জানাযায়, হামলাকরীদের সাথে অভিযোগকারীদের পূর্বে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিরেধ চলছে। এর জের ধরে সুমন সিকদার (১৬) টাউন হলের মধ্যে খেলত গেলে প্রতিপক্ষের লোকজন তার সাথে তর্কবিতর্ক শুরু করে এক পর্যায় তারা সুমনকে এলাপাথারী ভাবে চর, থাপ্পর, কিল ঘুষি মেরে শরীরের বিভিন্ন স্থানে ফুলা জখম কর। সুমন বিষটি তার মা লায়লা বেগমকে জানালে সে বিষয়টি জানতে গেলে হামলাকারীরা তার উপরও চড়াও হয়ে মারধর শুরু করলে তার ডাকচিৎকার শুনে তার বোন মোর্শেদা বেগম ও মা এগিয়ে আসলে তাদরকেও মারধর করে। মারধরের একপর্যায়ে হামলাকারীরা মোর্শেদা বেগমের চোখের উপরে কোপ দিলে মারাত্মক কাটা জখম হয়।
ছেলে-মেয়ের ভিতরে প্রেমের সম্পর্ক নিয়ে বিষয়টি ঘটে থাকতে পারে বলে স্থানীয়রা জানান। তারা আরও জানান সরকারি এই টাউন হলটি এখন অবৈধ বসবাস, গুরুর বাসস্থান সহ আড্ডাবাজির স্থান হয়ে দাড়িয়েছে। এবিষয়ে প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষন করেছেন স্থাণীয়রা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *