বন্দরে পরকীয়ার জেরে স্ত্রী পুত্রকে কুপিয়ে যখম

স্টাফ রিপোর্টারঃগতকাল ৭ সেপ্টেম্বর বন্দর ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড নুরপুর গ্রামে আবদুল খালেকের পরকীয়ায় বাঁধা দিলে বুলি হয় পুত্র স্কুল টিচার রাসেল ও তার পরিবার।
জানা যায় যে নুরপুর গ্রামের মৃত হায়দার আলীর ছেলে খালেক পরকীয়ায় আসক্তি, নারী লোভী পরকীয়া লিপ্ত খালেকের প্রথম সংসারের পুত্র টিচার রাসেল বলেন আমার জম্মমের পর থেকেই আমার মায়ের প্রতি অমানবিক নির্যাতন করে আর্সছে গ্রামের সহজ সরল মেয়ে বলে আমার মা আমি সহ আমার ছোট ২ বোনকে নিয়ে বহু নির্যাতন সয্য করে সংসার করে আর্সছে।
স্থানীয় দালাল ও ছিঁচকে সন্ত্রাস রহিম ৩৩,নবীর ৩৭ প্ররোচনায় নারী লোভী খালেক আমার মাকে দিনের পর দিন ঠকিয়ে এসেছে ২০০৮ সালে এসে গোপনে দিত্বীয় বিয়ে করেন তখন আমরা ছোট থাকায় তিনি দেদারসে অপকর্মে লিপ্ত থাকতেন।তার পৈশাচিক কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানালে এক পর্যায়ে ভয়ংকর রুপধারন করে।
রাসেল আরো বলেন নারী লোভী পরকীয়া লিপ্ত খালেক দীর্ঘদিন তার মামাতো বোনের সঙ্গে অবৈধভাবে সম্পর্ক করে এই বছরের মার্চ মাসে রাতের আঁধারে তিনি ৩য় বিয়ে করেন। আমার মা, ২ বোন আর আমাকে সমাজে মুখ লুকাতে হয়, নারী লোভী পিচাশ বাবার কর্মকাণ্ডে। ৩য় বিয়ে করেও শান্ত হয়নি তিনি, পরকীয়া যেন তার পেশা হয়ে দাড়িয়েছে, এতে তাকে বাঁধা প্রদান করলে আমার ও আমার মায়ের প্রতি ক্ষিপ্ত হয়ে আলেক ও কাশেম বাহিনী দিয়ে এলোপাতাড়ি হামলা করে তাৎক্ষণিকভাবে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পরি আমি ও আমার মা আমার মায়ের হাতে যখম হলে যখম স্থানে ৫ টি সেলাই করা হয়। বিষয়টি গ্রামের পঞ্চায়েত কমিটিকে জানানো হয়েছে বন্দর থানায় অভিযোগ পক্রিয়াধীন রয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার মতামত জানান