স্বপ্নের পদ্মা সেতু

বাউফলে রাতের আধারে সরকারি রাস্তার গাছ কেটে নেয়ার অভিযোগে বনবিভাগ বলছে ২টা গাছের জন্য সাংবাদিকরা ফোন করে বিরক্ত করে

বাউফলে রাতের আধারে সরকারি রাস্তার গাছ কেটে নেয়ার অভিযোগ

পটুয়াখালী জেলা প্রতিনিধি, পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলার আদাবাড়িয়া ইউনিয়নের কাশিপুর বাজারের দক্ষিন পাশে হাজিরহাট রোডে রাতের আধারে গাছ কেটে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শিরিন আক্তারের বিরুদ্ধে।

বৃহস্পতিবার (২’রা-সেপ্টেম্বর) দিবাগত রাত ৮টার দিকে ঘটনাটি ঘটে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, কাশিপুর হইতে হাজির হাট যেতে মুল সড়কের পাশে রোপনকৃত চাম্বল ও মেহগনি ৪ টা গাছ কেটে নিয়েছেন অত্র এলাকার ওয়ার্ড সভানেত্রী শিরিন আক্তার। এসময় এলাকাবাসী বলেন, সন্ধ্যার পড়ে লোকজন নিয়ে গাছ কেটে স্বমিলে নেয়ার সময় এলাকাবাসী দেখে ফেলে। স্থানীয় দেলোয়ার হাওলাদারের স্বমিলে গাছ রয়েছে এবং তথ্য অনুযায়ী গাছ সেখানে পাওয়া গেছে।

স্বমিল এর মালিক দেলোয়ার হাওলাদারের ছেলে রনি হাওলাদার স্বমিলের দায়িত্বে থাকায় তার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের স্বমিল বন্ধ ছিলো কে কখন স্বমিলের সামনে গাছ রেখে গেছে তা আমরা জানিনা।

উপস্থিত ইউপি সদস্য মজিবুর রহমান বলেন, সরকারি রাস্তার পাশে রোপনকৃত গাছ অনুমতি ছাড়া কাটলে সেটা ফৌজদারি অপরাধ বলে তিনি জানেন।

অভিযুক্ত সভানেত্রী শিরিন আক্তার জানান, জমির সামনের সরকারি রাস্তার পাশে থেকে সে দুটি ছোট গাছ কেটেছেন সেই জমির মালিককে ৩০০ টাকা দিয়ে কিনে নিয়েছেন এবং বিষয়টি উপজেলা বনবিভাগের লোকজন জানেন।

এবিষয়ে বাউফল উপজেলার বনবিভাগের দায়িত্বে থাকা আবুল কালাম আজাদকে অবহিত করা হলে তিনি বলেন, বিষয়টি আমি শুনেছি এবং আদাবাড়িয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মঞ্জু হাওলাদারকে জানিয়েছি। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে জানা যায়, উপজেলা বনবিভাগের লোকজন বিভিন্ন লোকজনকে গোপনে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে সরকারি রাস্তা গাছ বা সরকারি গাছ কেটে নেওয়ার জন্য পার্মিশন দেন এবং কোনও সমস্যায় পড়লে তা আবার তারাই নিজ হাতে সমাধান করেন। চলছে ব্যাপক অনিয়ম দুর্নীতি বাউফল উপজেলা বনবিভাগে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.