স্বপ্নের পদ্মা সেতু

বাউফল কারখানা সুফিয়া খাতুন বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের স্বাধীনতা দিবস উদযাপন

এম.সাইদুর রহমান স্টাফ রিপোর্টার;-২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে সকল শহীদ ও বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি স্বশ্রদ্ধ সালাম ও বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলি জানানো সহ সর্বস্তরের সকলকে আন্তরিক অভিনন্দন ও অফুরন্ত শুভেচ্ছা জানিয়েছেন কারখানা সুফিয়া খাতুন বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও কর্মচারীবৃন্ত।শনিবার (২৬ মার্চ) সকাল ১০টার দিকে উপজেলার কাছিপাড়া ইউনিয়নের কারখানা গ্রামের কারখানা সুফিয়া খাতুন বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সকল শহীদের প্রতি যথাযথ মর্যাদায় শ্রদ্ধাঞ্জলি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।

উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন,’ ডাঃ সাদিয়া আফরোজ প্রাক্তন বিটিভি’র (ইংরেজি) সংবাদ পাঠিকা ও কারখানা সুফিয়া খাতুন বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য। ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক হরিদাস পাইনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের সভাপতি হিসেবে উপস্থিতি ছিলেন মোঃ আবুল হোসেন মৃধা বিশিষ্ট সমাজসেবক ও শিক্ষানুরাগী।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিতি ছিলেন,’ মোসাঃ রুনিয়া বেগম সাবেক উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান ও পটুয়াখালী জেলা পরিষদ সদস্য, মোঃ গোলাম সরোয়ার কালাম খান সাবেক ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ কাছিপাড়া আব্দুর রশিদ মিয়া ডিগ্রি কলেজ, মোজাফফর হোসেন চৌধুরী ম্যানেজিং কমিটির বিদুতসাহী সদস্য কারখানা সুফিয়া খাতুন বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়,জনাবা জাহানারা হাশেম সাবেক সহসভাপতি কারখানা সুফিয়া খাতুন বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মো.শাহিন আকতার (ফকির) যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাছিপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ, মোঃ নজরুল ইসলাম মৃধা সদস্য কাছিপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ,মোঃ হেলাল খান সাবেক সেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি কাছিপাড়া ইউনিয়ন।এছাড়াও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন সামাজিক,রাজনৈতিক,শিক্ষার্থী ও অভিভাবক সহ বিভিন্ন শ্রেণীপেশার মানুষ।

স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ডাঃ সাদিয়া আফরোজ বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর পক্ষে স্বাধীনতার ঘোষণা আসার পর স্বাধীনতাকামী মুক্তি পাগল বাংলার দামাল সন্তানেরা স্বাধীনতা সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়ে। ৩০ লাখ বাঙ্গালীর প্রাণের বিনিময়ে ও তাদের আত্মত্যাগের ফলেই আমাদের বিজয় অর্জন সম্ভব হয়।স্বাধীনতাকে বুকে ধারণ করে আসুন সবাই দেশের জন্য কাজ করি ও সকল চড়াই উৎড়াই পিছনে ফেলে বাংলাদেশকে এগিয়ে নিয়ে যাই। দেশমাতৃকার কল্যাণে সবাই মিলেমিশে কাজ করবো এটাই আমাদের প্রত্যাশা। স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদদের ত্যাগের কথা কখনও ভুলে যাবার নয়, তাদের ত্যাগের মহিমা থেকে শিক্ষা নিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা স্বণির্ভর বাংলাদেশ বিনির্মাণে সবাই কাজ করার প্রত্যয় ও অঙ্গিকার ব্যক্ত করছি’।

তিনি আরও বলেন,’ আজকের এই দিনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা দেন। স্বাধীনতার আজ ৫১ বছর পেরিয়ে গেলেও স্বাধীনতা বিরোধীতা এখনো স্বাধীনতার বিরোধীতা করে চলছে। স্বাধীনতার ইতিহাসকে পুরো জাতির সমানে তুলে ধরতে আমাদের সাংবাদিকদেরই ভূমিকা রাখতে হবে। সে জন্য সাংবাদিকদেরও দেশের স্বাধীনতার ইতিহাসকে জানতে হবে এবং গবেষণা করতে হব।

উল্লেখ্য ১৯৭১ সালে ২৬শে মার্চ প্রথম প্রহরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ওয়ারলেস যোগে স্বাধীনতার ঘোষণা দেন। তারই পরিপ্রেক্ষিতে দীর্ঘ ৯মাস পাকিস্তানীদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে বাঙালি মুক্তিযুদ্ধারা। ৩০ লাখ শহীদের এবং ২ লাখ মা বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে দেশকে স্বাধীন করে মুক্তিযোদ্ধারা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.