ঢাকা ০৮:৪৯ অপরাহ্ন, রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
বন্দরে সাজাপ্রাপ্ত ভাই বোনসহ আরও ওয়ারেন্টভূক্ত মোট ১০ আসামী গ্রেপ্তার কাঙ্ক্ষিত মানের জনশক্তি ছাড়া বিপ্লব সাধিত হয় না- মোহাম্মদ আবদুল জব্বার বন্দরের ভয়ঙ্কর ডাকাত সর্দার মামুন গ্রেফতার বাউফলে প্রাণিসম্পদ সপ্তাহ উদ্বোধন করেন আ স ম ফিরোজ বাউফলে মাদক ব্যবসায়ী নাঈম কে ৯৯ পিস ইয়াবা সহ আটক করেছেন থানা পুলিশ  কাজিম উদ্দিন প্রধানের আকস্মিক মৃত্যুতে ফারুক হোসেনের গভীর শোক প্রকাশ বন্দর উপজেলা নির্বাচনে পিতা-পুত্রসহ ৫ চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়ন পত্র জমা ফিলিস্তিনিদের পাশে বিশ্বের সকল মুসলিমদের এগিয়ে আসতে হবে- ডাঃ সৈয়দ আব্দুল্লাহ মোঃ তাহের বাউফল কাশিপুরের অদম্য ১০ ব্যাচের বন্ধুমহলের ইফতার ও দোয়া অনুষ্ঠিত দুমকিতে ১ হাজার অসহায় পরিবারের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরন

যুবককে ধর্ষণ মামলায় জড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ দুমকী ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে

মোঃ রাকিবুল হাসান
  • আপডেট সময় : ০৬:০৫:৪৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ ৪৬৮ বার পড়া হয়েছে

পটুয়াখালীর দুমকীতে এক ইউপি সদস্যের পরিকল্পনায় মোঃ রাসেল হাওলাদার(৩৫) নামে এক যুবককে ধর্ষণ মামলায় জড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। অভিযুক্ত ইউপি সদস্য, নাসির হাওলাদার মুরাদিয়ার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য।

যদিও নাসির হাওলাদার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

বুধবার(২৬ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টায় দুমকী প্রেসক্লাবে উপস্থিত হয়ে নাসির হাওলাদারের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ করে সংবাদ সম্মেলন করেছেন রাসেল হাওলাদারের স্ত্রী নাজিয়া আক্তার। তিনি লিখিত বক্তব্যে জানিয়েছেন , গত নির্বাচনে নাসির মেম্বারের পক্ষে তাঁর স্বামী সমর্থন না করায় ক্ষিপ্ত হয়ে প্রতিবেশী কহিনুর বেগমকে কুপরামর্শ দিয়ে তাঁর স্বামীকে অহেতুক মিথ্যা মামলায় জড়িয়েছেন। মামলায় উল্লেখিত সময়ে তাঁর স্বামী পার্শ্ববর্তী কাসেম আকনের বাড়িতে পারিবারিক শালিসিতে উপস্থিত ছিলেন।

ঘটনা সূত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার (২২ সেপ্টেম্বর) উপজেলার মুরাদিয়া ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডে দুপুর ১ টার দিকে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী জোসনা আক্তার নামে এক তরুনী ধর্ষনের শিকার হন। এ ঘটনায় পরের দিন (২৩ সেপ্টেম্বর) দুমকী থানায় মোঃ মোক্তার মৃধাকে ধর্ষণ এবং মোঃ রাসেল হাওলাদারকে ধর্ষণের প্ররোচনা ও সহায়তা করেছে উল্লেখ করে ভিক্টিম বুদ্ধি প্রতিবন্ধী জোসনা আক্তারের মা কহিনুর বেগম বাদি হয়ে থানায় মামলা করেন।

এদিকে সাংবাদিকদের দেয়া এক ভিডিও বক্তব্যে ধর্ষণের শিকার ওই তরুনী দাবি করে বলেন, সকাল ১০ টার দিকে এ ঘটনা ঘটেছে । কিন্তু মামলায় ঘটনার সময় দুপুরের দিকে উল্লেখ করা হয়েছে। ওই ভিডিওতে তিনি আরও দাবি করে বলেন, আমার ইজ্জত নিয়ে কাড়াকাড়ি করছে, দুইজন। একটা রাসেল আর আরেকটা মোক্তার। কিন্তু মামলায় রাসেল হাওলাদারকে ধর্ষণে প্ররোচনা ও সহায়তা করার কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

ভুক্তভোগী নারীর অন্য একটি ভিডিও সাক্ষাৎকারে সাংবাদিকদের বলতে শোনা গেছে রাসেল হাওলাদর মোক্তারকে পাঠিয়েছে এবং রাসেল রাস্তায় ছিলো। রাসেল মোক্তারকে পাঠাইছে এটা কিভাবে বুঝলেন এমন প্রশ্নের জবাবে ওই তরুনী বলেন, এটা একটা চক্রান্ত। সকল ভিডিও ফুটেজ এই প্রতিবেদকের কাছে সংরক্ষিত আছে। রাসেল জড়িতের বিষয়ে ভুক্তভোগীর একেক সময় একেক রকম বক্তব্যের বিষয়ে পাশে থাকে তরুণীর মা কহিনুর বেগম বলেন, আউলাইয়া গেছে।

অপর দিকে এ প্রতিবেদকের কাছে থাকা এক ভিডিওতে দেখা যায়, ৫/৬ মাস আগে প্রতিবেশি অমল দাসের নামে জোসনা আক্তার ধর্ষণের অভিযোগ তুলে এক বয়স্ক লোকের কাছে অভিযোগ দিলে ওই বয়স্ক লোক অমল দাসের স্ত্রী ও জোসনা আক্তারকে নিয়ে এক জায়গায় বসে জিজ্ঞেসাবাদ করছেন। বয়স্ক ওই লোকের এক প্রশ্নের জবাবে জোসনা আক্তার বলেন, সত্যি হয়, সত্যিই তো করছে। সবারই তো মরতে হবে,সত্যি। বয়স্ক লোকটি পাল্টা প্রশ্ন করেন, অমল দাসের বউয়ের কাছে বলো নি কেন? উত্তরে বলছেন অমল দাসের বউ তখন বেড়াইতে গেছিল। এরপর পাশে থাকা অমল দাসের স্ত্রী জোসনা আক্তারকে জিজ্ঞেস করেন, আমি কি বেড়াইতে যাইয়া ৬ মাস ছিলাম? তুই প্রতিদিন ২/৩ বার আমার কাছে আসো কিন্তু তখন বললি না কেন।

এ বিষয়ে নাসির মেম্বরের মুঠোফোনে অভিযোগের বিষয় জানতে চাইলে তিনি “বাংলার শিরোনামকে” অস্বীকার করে বলেন, তাঁর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট। রাসেল নির্বাচনে তাঁর সমর্থন করে নাই এমন কথা কোন দিন কাউকে বলেন নাই । রাসেল তাঁর সম্পর্কে চাচাতো খালাতো ভাই।

নিউজটি শেয়ার করুন

3 thoughts on “যুবককে ধর্ষণ মামলায় জড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ দুমকী ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে

  1. আমি চাই দক্ষিন মুরাদিয়ার ৫ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্যর পরকীয়া খুঁজে বের করা হোক, তাহলেই সব রহস্যভেদ হবে। উদর পিন্ডি বুদোর ঘাড়ে চাপানোর জন্য ইউপি সদস্য নাসিরকে জুতাপেটা করা হোক।

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

যুবককে ধর্ষণ মামলায় জড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ দুমকী ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে

আপডেট সময় : ০৬:০৫:৪৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩

পটুয়াখালীর দুমকীতে এক ইউপি সদস্যের পরিকল্পনায় মোঃ রাসেল হাওলাদার(৩৫) নামে এক যুবককে ধর্ষণ মামলায় জড়িয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। অভিযুক্ত ইউপি সদস্য, নাসির হাওলাদার মুরাদিয়ার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য।

যদিও নাসির হাওলাদার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন।

বুধবার(২৬ সেপ্টেম্বর) সকাল ১০টায় দুমকী প্রেসক্লাবে উপস্থিত হয়ে নাসির হাওলাদারের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ করে সংবাদ সম্মেলন করেছেন রাসেল হাওলাদারের স্ত্রী নাজিয়া আক্তার। তিনি লিখিত বক্তব্যে জানিয়েছেন , গত নির্বাচনে নাসির মেম্বারের পক্ষে তাঁর স্বামী সমর্থন না করায় ক্ষিপ্ত হয়ে প্রতিবেশী কহিনুর বেগমকে কুপরামর্শ দিয়ে তাঁর স্বামীকে অহেতুক মিথ্যা মামলায় জড়িয়েছেন। মামলায় উল্লেখিত সময়ে তাঁর স্বামী পার্শ্ববর্তী কাসেম আকনের বাড়িতে পারিবারিক শালিসিতে উপস্থিত ছিলেন।

ঘটনা সূত্রে জানা যায়, গত শুক্রবার (২২ সেপ্টেম্বর) উপজেলার মুরাদিয়া ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডে দুপুর ১ টার দিকে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী জোসনা আক্তার নামে এক তরুনী ধর্ষনের শিকার হন। এ ঘটনায় পরের দিন (২৩ সেপ্টেম্বর) দুমকী থানায় মোঃ মোক্তার মৃধাকে ধর্ষণ এবং মোঃ রাসেল হাওলাদারকে ধর্ষণের প্ররোচনা ও সহায়তা করেছে উল্লেখ করে ভিক্টিম বুদ্ধি প্রতিবন্ধী জোসনা আক্তারের মা কহিনুর বেগম বাদি হয়ে থানায় মামলা করেন।

এদিকে সাংবাদিকদের দেয়া এক ভিডিও বক্তব্যে ধর্ষণের শিকার ওই তরুনী দাবি করে বলেন, সকাল ১০ টার দিকে এ ঘটনা ঘটেছে । কিন্তু মামলায় ঘটনার সময় দুপুরের দিকে উল্লেখ করা হয়েছে। ওই ভিডিওতে তিনি আরও দাবি করে বলেন, আমার ইজ্জত নিয়ে কাড়াকাড়ি করছে, দুইজন। একটা রাসেল আর আরেকটা মোক্তার। কিন্তু মামলায় রাসেল হাওলাদারকে ধর্ষণে প্ররোচনা ও সহায়তা করার কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

ভুক্তভোগী নারীর অন্য একটি ভিডিও সাক্ষাৎকারে সাংবাদিকদের বলতে শোনা গেছে রাসেল হাওলাদর মোক্তারকে পাঠিয়েছে এবং রাসেল রাস্তায় ছিলো। রাসেল মোক্তারকে পাঠাইছে এটা কিভাবে বুঝলেন এমন প্রশ্নের জবাবে ওই তরুনী বলেন, এটা একটা চক্রান্ত। সকল ভিডিও ফুটেজ এই প্রতিবেদকের কাছে সংরক্ষিত আছে। রাসেল জড়িতের বিষয়ে ভুক্তভোগীর একেক সময় একেক রকম বক্তব্যের বিষয়ে পাশে থাকে তরুণীর মা কহিনুর বেগম বলেন, আউলাইয়া গেছে।

অপর দিকে এ প্রতিবেদকের কাছে থাকা এক ভিডিওতে দেখা যায়, ৫/৬ মাস আগে প্রতিবেশি অমল দাসের নামে জোসনা আক্তার ধর্ষণের অভিযোগ তুলে এক বয়স্ক লোকের কাছে অভিযোগ দিলে ওই বয়স্ক লোক অমল দাসের স্ত্রী ও জোসনা আক্তারকে নিয়ে এক জায়গায় বসে জিজ্ঞেসাবাদ করছেন। বয়স্ক ওই লোকের এক প্রশ্নের জবাবে জোসনা আক্তার বলেন, সত্যি হয়, সত্যিই তো করছে। সবারই তো মরতে হবে,সত্যি। বয়স্ক লোকটি পাল্টা প্রশ্ন করেন, অমল দাসের বউয়ের কাছে বলো নি কেন? উত্তরে বলছেন অমল দাসের বউ তখন বেড়াইতে গেছিল। এরপর পাশে থাকা অমল দাসের স্ত্রী জোসনা আক্তারকে জিজ্ঞেস করেন, আমি কি বেড়াইতে যাইয়া ৬ মাস ছিলাম? তুই প্রতিদিন ২/৩ বার আমার কাছে আসো কিন্তু তখন বললি না কেন।

এ বিষয়ে নাসির মেম্বরের মুঠোফোনে অভিযোগের বিষয় জানতে চাইলে তিনি “বাংলার শিরোনামকে” অস্বীকার করে বলেন, তাঁর বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট। রাসেল নির্বাচনে তাঁর সমর্থন করে নাই এমন কথা কোন দিন কাউকে বলেন নাই । রাসেল তাঁর সম্পর্কে চাচাতো খালাতো ভাই।